রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ১০:০৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
স্বতন্ত্র প্রার্থী ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন সালেহ আহমেদ প্রেমের টানে আপন চাচীকে সাথে নিয়ে পালিয়ে গেল ভাতিজা তালেবানের সঙ্গে বসবেন সৌদি যুবরাজ আগামী ২৪ ঘণ্টা বৃষ্টি থাকতে পারে রুস্তমপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন স্কুল ও ব্রিজের পরিদর্শন : বিশ্বজিত হেলাল আহমদের সমর্তনে আওয়ামীলীগের কর্মী সভা সংসদ নির্বাচন নিয়ে জাতীয় পার্টির মতবিনিময় ২৭ ফেব্রুয়ারি জামায়াত ক্ষমা চাইলেও বিচার বন্ধ হবে না: ওবায়দুল কাদের আসন্ন নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে গোয়াইনঘাটে প্রার্থীরা নির্বাচন চ্যালেঞ্জ করে বিএনপির ৭৪ প্রার্থীর মামলা জার্মানি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৯ বছর পর ছাত্রলীগের সঙ্গে আড্ডায় ছাত্রদল ভালোবাসা দিবসে ক্যাটরিনাকে বিয়ে করছেন সালমান! ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ আরও একবার ইতিহাসের পাতায় নাম লেখালেন মাশরাফি বিন মুর্তজা
কচুয়ায় ভূয়া মাজার নিয়ে যত কাণ্ড!

কচুয়ায় ভূয়া মাজার নিয়ে যত কাণ্ড!

কচুয়ার চক্রা গ্রামে লাল সালু আবৃত ভূয়া মাজার তৈরি করে এক দম্পতির বিরুদ্ধে প্রতারনা করার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

কচুয়ার চক্রা গ্রামে লাল সালু আবৃত ভূয়া মাজার তৈরি করে এক দম্পতির বিরুদ্ধে প্রতারনা করার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। প্রায় ২ মাস আগে ওই গ্রামের মৃত টুকু মিয়ার ছেলে আ: মমিন খন্দকার, তার ২য় স্ত্রী রোকেয়া বেগম চক্রা গ্রামের বেনুচো নতুন বাড়িতে ঘরের সম্মুখে দু’টি নতুন কবর তৈরি করে চারদিকে লালসালু আবৃত করে কয়েকটি ছবি টানিয়ে দেন। এ সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সাধারন লোকজনের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গেলে ওই গ্রামের আনোয়ার হোসেন,আহসান হাবীব, সোহেল, আবু হানিফ, রফিক, ফরহাদ হোসেন সহ একাধিক লোকজন জানান, এই স্থানে পূর্বে কোনো মাজার কিংবা কবর ছিল না। আ: মমিন খন্দকার তার ২য় স্ত্রী রোকয়ো বেগমের প্ররোচনায় গত ২৯ নভেম্বর রাতে কিছু অতি উৎসাহী লোকের সহায়তায় তার ঘরের সামনে মাটি দিয়ে দুটি নতুন কবর তৈরি করে মাজার হয়েছে বলে প্রচার চালায়। এটি এলাকার সাধারন মানুষকে ধোঁকা দেয়ার জন্য কবরের মতো তৈরি করেছে বলে এলাকাবাসী দাবি করেন। এলাকাবাসী এটিকে ভূয়া মাজার দাবি করে, এটি নিয়ে তারা স্বামী স্ত্রী যাতে কোনো প্রতারনা কিংবা ফায়দা লুটতে না পারে শীঘ্রই তা বন্ধ করতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন।

আ: মমিনের ১ম স্ত্রী নাছিমা বেগম জানান, এই বিষয়ে মুখ খুলতে নিষেধ রয়েছে। এটি কোন বুজুর্গ ব্যক্তির নামে মাজার কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি আমার স্বামী ও তাঁর ২য় স্ত্রী রোকেয়া বেগম ভালো জানেন। তবে এখানে পূর্বে কোনো কবর ছিলনা বলে তিনি জানান এবং মাঝে মধ্যে এখানে হালকা জিকির -আজকারের আয়োজন করা হয়।

এ ব্যাপারে রোকেয়া বেগম মুঠোফোনে জানান, আমার স্বামী আ.মমিন ও আমি ফরিদপুরের আটরশির মুরিদ (ভক্ত)। আমার স্বামী আ: মমিন খন্দকার কচুয়া-ঢাকা সড়কের সুরমা বাসের সুপারভাইজার। আমরা নারায়নগঞ্জে বসবাস করি। আমি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মাজারে যাই। আমাকে স্বপ্নে দেখানোর ফলে আমি এটিকে মাজার হিসেবে গড়ে তুলি। তবে কোন ধরনের প্রতারনার উদ্দেশ্যে তা করিনি।

এ ব্যাপারে আশরাফপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ এলাহী সুবাস জানান, চক্রা গ্রামে মাজার উঠার বিষয়ে আমার জানা নেই।

কচুয়া থানার ওসি মো. আতাউর রহমান ভূঁইয়া বলেন, চক্রা গ্রামে মাজার গড়ে উঠার বিষয়ে আমার জানা নেই, তবে এখানে কোন প্রতারনা হয় কিনা তা খোজ খবর নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

image_print

সংবাদ শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।





ক্যালেন্ডার

ফেব্রুয়ারী 2019
সোম বুধ বৃহ. শু. শনি রবি
« জানু.    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728  



© All rights reserved © 2017 Uttarancholsylhet.com
 
Design & Developed BY TC Computer